Deprecated: Function get_magic_quotes_gpc() is deprecated in /customers/2/1/8/swadhindesh.com/httpd.www/bangla/wp-includes/load.php on line 651 Deprecated: Function get_magic_quotes_gpc() is deprecated in /customers/2/1/8/swadhindesh.com/httpd.www/bangla/wp-includes/formatting.php on line 4381 Deprecated: Function get_magic_quotes_gpc() is deprecated in /customers/2/1/8/swadhindesh.com/httpd.www/bangla/wp-includes/formatting.php on line 4381 Deprecated: Function get_magic_quotes_gpc() is deprecated in /customers/2/1/8/swadhindesh.com/httpd.www/bangla/wp-includes/formatting.php on line 4381 বিজয়ের মাসে যুদ্ধ দিনের কথা | Swadhindesh.com-স্বাধীনদেশ

Thursday , 6 August 2020

Latest News
Home » TOP TEN » বিজয়ের মাসে যুদ্ধ দিনের কথা

বিজয়ের মাসে যুদ্ধ দিনের কথা

December 19, 2017 9:43 am Category: TOP TEN, নির্বাচিত কলাম Comments Off on বিজয়ের মাসে যুদ্ধ দিনের কথা A+ / A-

 

আবদুল কাদির সালেহ

ছোট হওয়ার অসুবিধা যেমন আছে আবার সুবিধাও অনেক । সেদিন নয়াপাড়া এলাকায় বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলন এবং মিলিটারী খতমের শ্লোগান দিয়ে মিছিল করতে আমি সেই সুবিধাটা পেয়েছিলাম ।

তার আগে ছোট হওয়ার কারনে বন্চিতও যে হয়েছি অনেক সে কথাটাই বলি এখানে ।  ৬৮ সালে আইয়ূব খানের বার্থ কন্ট্রোল আইনের বিরুদ্ধে দেশব্যাপী ব্যাপক আন্দোলন হয় । আমাদের মাদ্রাসার ছাত্ররা এ আন্দোলনে ব্যাপক ভূমিকা পালন করে । জিরুন্ডা গ্রামের মেহের উল্লাহ ভাই ছিলেন তখন মাদ্রাসা ছাত্র ইউনিয়নের সেক্রেটারী । সংগ্রামী মানুষ । আমাদের সিনিয়দের মধ্যেও ছিলেন সেই সময়ের একদল চৌকস ছাত্র নেতা ।

বেঙ্গাউতার কিতাব আলী ভাই, আমার চাচা আব্দুল ওয়াহহাব আফরোজ ,আমাদের গ্রামের আলী আহমদ ভাই, হরিতলার আব্দুল ওয়াহহাব ভাই ,ইটাখোলার আন্জব আলী ভাই ও লকুজ ভাই, বেঙ্গাউতার সুলতান ভাই , খড়কীর জিয়া উদ্দীন ভাই সহ আরো অনেকে । তারা গায়ে গতরে যেমন উঁচা লম্বা ছিলেন তেমনি সাহসী এবং সামাজিক যোহাযোগে বেশ চৌকস ছিলেন ।

একবার কর্মসুচী নেয়া হলো ছাতিয়ান বাজারে স্থাপিত বার্থ কন্ট্রোল অফিস ভেঙ্গে দেয়া হবে ।এ নিয়ে মিটিং হলো ।

বয়সে ছোট বিধায় তিন মাইল দূরের ছাতিয়াইন বাজারে মিছিল ও বিক্ষোভ যাত্রায় আমাকে নেয়া হলোনা । তারা গেলেন বিরাট মিছিল নিয়ে । বার্থ কন্ট্রোল অফিসার পালিয়ে গেলেন । পরে অবশ্য সরকার বার্থ কন্ট্রোল নাম পরিবর্তন করে ফ্যামিলি প্লানিং নামকরন করে ।

বিক্ষোভকারীরা অফিস ভাঙ্চুর করে , ঔষধ পত্র বিনষ্ঠ করে এবং অফিসের বিরাট সাইনবোর্ডটা খুলে সাথে করে মাদ্রাসায় নিয়ে এসে পেশাব খানার বেড়া হিসেবে ফিক্স করে ফেলে । পরদিন এই বে আইনী কাজ করার জন্য তাদেরকে প্রচন্ড মার খেতে হয় । ছোটরা আমরা যারা যেতে পারিনি তারা ছাড়া মাদ্রাসার সকল ছাত্র সেদিন দশটা করে কাঁচা কন্চির বেত্রাঘাত খেয়েছে ।

তাদের শপথ ছিল মার খাবো কিন্তু উহ্ করবোনা । অবশেষে তাই হয়েছে ।

তারা যখন ফিরতি পথে শ্লোগান দিচ্ছিল :

‘ ছাতিয়াইন ছাতিয়াইন -গিয়েছি গিয়েছি’ ।
‘ সাইনবোর্ড সাইনবোর্ড – ভেঙ্গেছি ভেঙেছি ‘।
‘অফিসারকে অফিসারকে – দৌড়াইছি, দৌড়াইছি’।
‘ পালাইছেরে পালাইছে – অফিসার পালাইছে ।
‘ ইসলামবিরোধী বার্থ কন্ট্রোল – মানিনা চলবেনা।
‘ আইয়ূব যদি বাঁতে চাও – গদ্দি ছাইড়া চলে যাও ।
‘ কানা মন্ত্রী ফজলুর রহমানের – ফাঁসি চাই দিতে হবে ।

আমার তখন আর আফসোসের সীমা থাকলোনা ।

এর কিছুদিন পর মহকুমা ব্যাপী বার্থ কন্ট্রোলের বিরুদ্ধে বিক্ষোভের কর্মসুচী নেয়া হয় । তখন মহকুমা বার্থ কন্ট্রোলের
হেড অফিস ছিল চুনারুঘাট সদরে । তখনও একই কারনে আমাকে নেয়া হয়নি । সারা মহকুমার মাদ্রাসা ছাত্ররা সেদিন জমায়েত হয়েছিল চুনারুঘাটে । পুলিশ খুব কঠোর ব্যবস্থা নিয়েছিল । আমাদের মাদ্রাসা থেকে মেহেরুল্লাহ ভাই ও সুলতান ভাই সহ চারজন এরেস্ট হয়েছিলেন ।

আমার এই বাদ পড়া আমাকে আহত করতো ।

এর বেশ পরে ‘ ৬৯ এর গণ অভ্যুত্থানের টালমাটাল সময়ে
আইয়ুবখানের পদত্যাগ, ধর্মমন্ত্রী ড: ফজলুর রহমানের ফাঁসি
এবং আরও জাতীয় ও মাদ্রাসা ছাত্রদের দাবী সহ মোট আট দফা দাবী নিয়ে ঢাকায় গভর্ণর হাউস ঘেরাও কর্মসূচী রাখা হয় ।

সেখানেও আমাকে নেয়া হলোনা বয়স এবং সাইজে ছোট হওয়ার কারনে । আমি কিন্তু লুকিয়ে আমাদের ক্ষেতের আলু তুলে বিক্রি করে ১২/-টাকা জোগাড় করে রেখেছিলাম ।

গভর্ণর হাউস ঘেরাও হলো । ফজলুর রহমান অপসারিত হলেন । আইয়ুব খানও এক পর্যায়ে পদত্যাগ করলেন । আমার দু:খবোধ থেকে গেলো ।

আইয়ূবের বিরুদ্ধে এতো পোস্টার লিখলাম ; কিন্তু ঐ একই কারনে মূল কর্মসূচীতে আমার অংশ গ্রহনের
সুযোগ মিললোনা ।

( চলবে)

লেখক : অধ্যাপক মাওলানা আবদুল কাদির সালেহ ।
সাবেক সহযোগী সম্পাদক : দৈনিক আল মুজাদ্দেদ
চেয়ারম্যান : আল আমীন ফাউন্ডেশন ও স্কুল, বার্মিংহাম, ইংল্যান্ড
ইমেল : quadirsaleh@gmail.com

বিজয়ের মাসে যুদ্ধ দিনের কথা Reviewed by on .   আবদুল কাদির সালেহ ছোট হওয়ার অসুবিধা যেমন আছে আবার সুবিধাও অনেক । সেদিন নয়াপাড়া এলাকায় বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলন এবং মিলিটারী খতমের শ্লোগান দিয়ে মিছিল করতে   আবদুল কাদির সালেহ ছোট হওয়ার অসুবিধা যেমন আছে আবার সুবিধাও অনেক । সেদিন নয়াপাড়া এলাকায় বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলন এবং মিলিটারী খতমের শ্লোগান দিয়ে মিছিল করতে Rating: 0
scroll to top